সিলেট ১০:২০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ২৪ মে ২০২৪, ১০ জ্যৈষ্ঠ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
সংবাদ শিরোনাম ::
Logo নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলম্যান প্রয়াত পল ভ্যালনের স্মরণে ক্লিনটন ডেমোক্রেটিক ক্লাবের সভা Logo সু-শিক্ষাই হল আগামী ডিজিটাল বাংলাদেশ গঁড়ার মূল চালিকাশক্তি- শাবিপ্রবি অধ্যাপক ড. শাহ্ মোঃ আতিকুল হক Logo মুক্তিযুদ্ধের সংগঠক হুমায়ুন কবির হিরু মারা গেছেনপ্রয়ানে প্রবাসীদের শোক Logo সিলেটে তৃণমূল নারী  উদ্দ্যোক্তা সোসাইটির  সংবর্ধনা Logo নারী উদ্যোক্তাদের মাঝে তৃণমূল নারীউদ্যোক্তা সোসাইটির খাদ্য সামগ্রী বিতরণ Logo ইসলামপুরে স্বাবলম্বী উন্নয়ন সমিতির উদ্যোগে বিদ্যালয় ভিত্তিক সচেতনমূলক সভা Logo “মৌলভীবাজার জেলার সাবেক ছাত্রলীগের রিইউনিয়ন কমিটি ইউকের সভা অনুষ্টিত, Logo “অর্গ্যানাইজেশন ফর দ্য রিকগনিশন অব বাংলার প্রেসিডেন্ট ও সাবেক রাষ্ট্রদূত ড.তোজাম্মেল টনি হক আর নেই,, বিভিন্ন মহলের শোক প্রকাশ, Logo বিশ্ব মা দিবস-সব মায়েদের জন্য অফুরন্ত শ্রদ্ধা ও ভালবাসা Logo ড.এম এ ওয়াজেদ মিয়ার কর্ম জীবন থেকে অনেক শিক্ষনীয় আছে। মুক্তিযুদ্ধ বিষয়ক মন্ত্রী মোজাম্মেল হক

মধুপুরে রং তুলির নিবিড় আঁচড়ে প্রতিমা সাজাতে ব্যস্ত কারিগররা।

আঃ হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ
দরজায় কড়া নাড়ছে সনাতন ধর্মাবম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এই উৎসবকে ঘিরে মধুপুরের পাড়া মহল্লায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রতিমা শিল্পীরা। মন্ডপগুলোতে শুরু হয়েছে উৎসবের প্রস্তুতি। বাপের বাড়ি যাওয়ার অপেক্ষায় থাকা দেবী দুর্গাকে সুন্দর রূপ দিতে দিন-রাত রং তুলির মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন তারা।
পাশাপাশি পুরোদমে এগিয়ে চলছে নানান ডিজাইনের গেইট ও আলোকসজ্জার কাজ। এবার মধুপুর উপজেলায় মোট ৫৪ টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে পৌরসভায় ২৩টি এবং বাকি ৩১ টি বিভিন্ন ইউনিয়নে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুশীল কুমার দাস।
প্রতিটি প্রতিমাকে রঙ-তুলির নিপুণ আঁচড়ে রাঙাতে ব্যস্ত কারিগররা। চলছে সাজ-সজ্জার কাজও। দেবী দুর্গার সঙ্গে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে কার্তিক, গণেশ, লক্ষ্মী আর সরস্বতী দেবীকেও।
পঞ্জিকা মতে আগামী ২০ অক্টোবর মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে দুর্গাপূজা। আগামী ২৪ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই মহা উৎসব।
এবার দেবীর আগমন ও গমন হবে ঘোটকে অর্থাৎ (ঘোড়ায়)। যার কারণে পৃথিবী জুড়ে এবার অনেকটা অস্থির ও বিশৃঙ্খলা থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা।
মধুপুর থানা ইনচার্জ মোল্লা আজিজুর রহমান জানিয়েছেন, নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার চাদরে অনুষ্ঠিত হবে এবারের দুর্গাপুজা উৎসব। এ বিষয়ে কয়েক দফায় পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ও সদস্যদের নিয়ে মুক্ত আলোচনা করা হয়েছে।
তিনি আরও জানান, মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত সকল শারদীয় দুর্গাপুজা মন্ডপে আইন শৃঙ্খলা ও সার্বিক নিরাপত্তায় থাকছে, পুলিশি মোটরসাইকেল টহল, সমন্বিত পুজামন্ডপ কমিটি, স্থানীয় সেচ্ছাসেবক, আনসার বাহিনী সহ থানা পুলিশের বিশেষ টিম সার্বক্ষণিক টহল দিবেন।
এবার প্রতিটি পুজামন্ডপ সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকবে বলে জানিয়েছেন মধুপুরের পৌর পিতা সিদ্দিক হোসেন খান। তিনি সম্প্রীতি বজায় রেখে সবাইকে সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ জানান।

ট্যাগস :
জনপ্রিয় সংবাদ

নিউইয়র্ক সিটি কাউন্সিলম্যান প্রয়াত পল ভ্যালনের স্মরণে ক্লিনটন ডেমোক্রেটিক ক্লাবের সভা

মধুপুরে রং তুলির নিবিড় আঁচড়ে প্রতিমা সাজাতে ব্যস্ত কারিগররা।

আপডেট সময় : ০৬:৩২:০০ অপরাহ্ণ, মঙ্গলবার, ১৭ অক্টোবর ২০২৩

আঃ হামিদ মধুপুর টাঙ্গাইল প্রতিনিধিঃ
দরজায় কড়া নাড়ছে সনাতন ধর্মাবম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজা। এই উৎসবকে ঘিরে মধুপুরের পাড়া মহল্লায় ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন প্রতিমা শিল্পীরা। মন্ডপগুলোতে শুরু হয়েছে উৎসবের প্রস্তুতি। বাপের বাড়ি যাওয়ার অপেক্ষায় থাকা দেবী দুর্গাকে সুন্দর রূপ দিতে দিন-রাত রং তুলির মাধ্যমে কাজ করে যাচ্ছেন তারা।
পাশাপাশি পুরোদমে এগিয়ে চলছে নানান ডিজাইনের গেইট ও আলোকসজ্জার কাজ। এবার মধুপুর উপজেলায় মোট ৫৪ টি মন্ডপে শারদীয় দুর্গাপূজা অনুষ্ঠিত হবে। এর মধ্যে পৌরসভায় ২৩টি এবং বাকি ৩১ টি বিভিন্ন ইউনিয়নে অনুষ্ঠিত হবে বলে জানিয়েছেন পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সুশীল কুমার দাস।
প্রতিটি প্রতিমাকে রঙ-তুলির নিপুণ আঁচড়ে রাঙাতে ব্যস্ত কারিগররা। চলছে সাজ-সজ্জার কাজও। দেবী দুর্গার সঙ্গে সাজিয়ে তোলা হচ্ছে কার্তিক, গণেশ, লক্ষ্মী আর সরস্বতী দেবীকেও।
পঞ্জিকা মতে আগামী ২০ অক্টোবর মহাষষ্ঠী পূজার মধ্য দিয়ে শুরু হবে দুর্গাপূজা। আগামী ২৪ অক্টোবর বিজয়া দশমীতে প্রতিমা বিসর্জনের মধ্য দিয়ে শেষ হবে এই মহা উৎসব।
এবার দেবীর আগমন ও গমন হবে ঘোটকে অর্থাৎ (ঘোড়ায়)। যার কারণে পৃথিবী জুড়ে এবার অনেকটা অস্থির ও বিশৃঙ্খলা থাকবে বলে মন্তব্য করেছেন পূজা উদযাপন পরিষদের নেতারা।
মধুপুর থানা ইনচার্জ মোল্লা আজিজুর রহমান জানিয়েছেন, নিচ্ছিদ্র নিরাপত্তার চাদরে অনুষ্ঠিত হবে এবারের দুর্গাপুজা উৎসব। এ বিষয়ে কয়েক দফায় পুজা উদযাপন কমিটির সভাপতি সাধারণ সম্পাদক ও সদস্যদের নিয়ে মুক্ত আলোচনা করা হয়েছে।
তিনি আরও জানান, মধুপুর উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় অবস্থিত সকল শারদীয় দুর্গাপুজা মন্ডপে আইন শৃঙ্খলা ও সার্বিক নিরাপত্তায় থাকছে, পুলিশি মোটরসাইকেল টহল, সমন্বিত পুজামন্ডপ কমিটি, স্থানীয় সেচ্ছাসেবক, আনসার বাহিনী সহ থানা পুলিশের বিশেষ টিম সার্বক্ষণিক টহল দিবেন।
এবার প্রতিটি পুজামন্ডপ সিসিটিভি ক্যামেরার আওতায় থাকবে বলে জানিয়েছেন মধুপুরের পৌর পিতা সিদ্দিক হোসেন খান। তিনি সম্প্রীতি বজায় রেখে সবাইকে সহযোগিতা করার জন্য অনুরোধ জানান।